সিডনিতে মঙ্গল শোভাযাত্রা কবে?

সিডনিতে মঙ্গল শোভাযাত্রা কবে?

বাংলাদেশে নববর্ষ উদযাপনে এ বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে নানা রকম টানা-পোড়েন লক্ষ্য করা গেছে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ দলীয়ভাবে এ বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা না করার ঘোষনা দিয়েছিল আগেই। ধর্মীয় গোষ্ঠীগুলোর পক্ষ থেকে নানা রকম বিরোধিতা ছিল উল্লেখ করার মতো। তারা এ বছর বাংলা নববর্ষ উদযাপনের বিরুদ্ধে রাজপথে, সামাজিক (ফেইসবুকে) এবং বানিজ্যিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারনা চালিয়েছে। কিন্তু তারপরেও এ বছর রমনা’র বটমূলে মানুষের বাধভাংগা জোয়ার থামাতে পারেনি, কিছুতেই। বরং মানুষের অংশগ্রহণ এবং উদ্দীপনা ছিল অন্য যে কোনো বছরের তুলনায় অনেক বেশি।

এ বছর চট্টগ্রামের ডিসি হিলের সড়কের নববর্ষের আলপনা নতুন ইতিহাস সৃস্টি করেছে। বাংলাদেশ সরকারের পুলিশের পক্ষ থেকে রমনার প্রবেশমুখে বাতাসা এবং গোলাপের শুভেচ্ছা ছিল নজিরবিহীন। সারা বাংলাদেশে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে কোনো রকম দূর্ঘটন ছাড়াই নববর্ষ উদযাপিত হয়েছে। বাংলাদেশের বাইরেও এ বছর কানাডার টরেন্টোতে এক বর্নাঢ্য এক মঙ্গল শোভাযাত্রার করা হয়েছে। এ ছাড়াও অন্যান্য দেশে বাংগালিরা ‘জীবন যেখানে যেমন’ অবস্থার মধ্যে দিয়ে নব্বর্ষ উদযাপন করেছে।

সিডনিতে ইতিমধ্যেই বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে দুই দুটি বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত মেলাসমুহে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংগালিদের উপস্থিতি মেলার সফলতা দাবি করছে। সিডনিতে সর্ববৃহৎ বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয় সিডনি অলেম্পিক পার্কে। বংগবন্ধু কাউন্সিল অস্ট্রেলিয়া গত ২৫ বছর যাবৎ উক্ত মেলাটি আয়োজন করছে। এ বছর বংগবন্ধু কাউন্সিল অস্ট্রেলিয়া আগামী ১৩ মে ২০১৭ বৈশাখী মেলার আয়োজন করতে যাচ্ছে। উল্লেখ্য, আবহাওয়া ভালো থাকলে এই মেলাটিতে প্রতি বছর বিশ-পচিশ হাজার বাংগালিদের সমাগম হয়।

কিন্তু দুঃখের বিষয় হচ্ছে, টরেন্টোর বাংগালিদের মতো সিডনি’র বাংগালিরা এখনো একটি মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করতে পারেনি। যদিও টরেন্টোর তুলনায় সিডনিতে বাংগালিদের সংখ্যা অনেক বেশি। পর্যেক্ষকদের মতে, সিডনিতে বাংগালিদের যত রকম আদর্শ-চেতনা আছে তার সবই প্রমান করে, কোনো না কোনো নামে মেলা আয়োজনের মাধ্যমে। এখানকার বাংগালিরা স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে ‘স্বাধীনতা মেলা’; বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে ‘বিজয় মেলা’; নববর্ষ উপলক্ষে ‘বৈশাখী মেলা’ আয়োজন করে। মেলার কোনো অভাব নেই; মেলায় মেলায় সয়লাব।

নিজেদের নেতৃত্বে মেলা আয়োজন করার জন্য প্রয়োজনে বড় রাজনৈতিক দলের মধ্যে ভাংগন সৃষ্টি করে নতুন কমিটি করতেও দ্বিধা করে না। এই খেলায় সিডনিতে ‘মহল্লার ম্যাকবেথ এবং ব্যাক স্ট্রিট বয়েজদের’ যারপরনাই তৎপরতা মুখরোচক গল্পের যোগান দিচ্ছে, নিয়মিত। এক গ্রুপ আরেক গ্রুপকে অনলাইনে, ইনলাইনে ‘এয়ারপোর্টলীগ’; ‘পরিবহনলীগ’ ‘হাইব্রিডলীগ’ ‘স্বাধীনতা বিরোধী’ ‘জামায়াত-বিএনপি’ নানা বিশেষণে ভূষিত করে।

এতদ্বসত্ত্বেও স্যাটায়ারধর্মী সংগঠন ‘অহেতুক চিন্তা পরিষদ’ আগামী বছর পহেলা বৈশাখ, ১৪২৫ বংগাব্দ, সিডনি’র বাংগালি অধ্যুষিত এলাকা লাকেম্বা’র হ্যাল্ডন স্ট্রিটে একটি মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজনের আহবান জানিয়েছে। এ ব্যাপারে অহেতুক চিন্তা পরিষদের সভাপতি ড. শাখাওয়াৎ নয়ন এক বিবৃতিতে, অস্ট্রেলিয়াস্থ বাংগালিবান্ধব (বাংলাদেশি এবং ভারতের) সকল ব্যক্তি এবং সংগঠনের কাছে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছেন। তিনি আরো বলেন, অস্ট্রেলিয়াতে যদি চাইনিজরা তাদের নববর্ষে ‘ড্রাগন প্যারেড’ করতে পারে, ইরানী মুসলিমরা যদি ‘নওরোজ উৎসব’ পালন করতে পারে, তাহলে বাংগালিরা কেন ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা’ করবে না?

No comments

Write a comment
No Comments Yet! You can be first to comment this post!

Write a Comment

Your e-mail address will not be published.
Required fields are marked*


Related Articles

আমের রহমান: ‘ভাল বলেই ভালবাস খোকা বলে নয়’

রবীঠাকুর আসলে লিখেছিলেন ‘খোকা বলেই ভালবাসি ভাল বলে নয়’। এই ছড়াটা (ছড়াইতো তাইনা?) আমার ছেলেকে ওর ছোটবেলায় শুনাতাম। ও তখন

ফিরে দেখা: পনেরো আগস্ট

ভোরবেলা ঘুম ভাঙলো আব্বার হাঁকডাকে। উনি চিৎকার করে সবাইকে ডাকছেন, তাড়াতাড়ি উঠো, সর্বনাশ হয়ে গেছে, শুনো রেডিওতে কি বলছে। প্রতিদিন

বইপড়া ও আমার প্রান্তিক জীবন

শিকড় মানেই তো এক প্রান্ত। তবু এই প্রান্তিক শিকড়ই জীবনকে খোরাক জোগায় ও সমৃদ্ধ করে। ১৯৭৯ সালের শরৎকাল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের