রংধনু আর আমার ভাবনা!

রংধনু আর আমার ভাবনা!

বৃষ্টির দিনে ঝিরিঝিরি বৃষ্টির মাঝে সূর্যের আলোকরশ্বি যখন উকি দেয় তখন অপরদিকে আকাশে ভেসে ওঠে গগন বিস্তির্ন রংধনুর সাতরং এর আলোকরশ্বি। সূর্য্যের আলো তার সৌন্দর্যকে বিকশিত করে আমাদের মাঝে এই রংধনুর ৭ রং ছড়িয়ে দেয় যার স্থায়িত্বকাল অতি অল্প!

সেরকম ভাবে আমাদেরকেও এ পৃথিবীতে পাঠানো হয়েছে রংধনুর মত চারদিকে আলো বিকশিত করবার জন্য, কিন্তু আমরা কি তাই করি বা করতে পারি? আমাদের ভাবা উচিত যে, সময় আমাদের খুবই কম!! পথপ্রদর্শক রংধনুকে দেখে কখনো কি আমরা একথাটা আদৌ ভাবি না যে সেই রংধনুর আলো নিভে গেলে যেমন রংধনুর কোন অস্তিত্ব থাকেনা, সে ফিরে যায় তার উতপত্তিস্থলে, তেমনি আমাদের সময়ও কোন না কোন একসময় শেষ হয়ে যাবে আর আমাদেরও ফিরে যেতে হবে সেই বিশেষ সুত্রপাত আল্লাহতায়ালার কাছে। আসলে আমাদের জীবনের নানান রং গুলি যেমন নানান সময়ে তাদের বিভিন্ন রুপ নিয়ে আবির্ভূত হয় তেমনি রংধনুও তার ৭ রং দিয়ে বিভিন্ন ভাবে আকাশের গভীরতা আর তার চারপাশের বিশালতার প্রকাশ ঘটায়!

রংধনু যেমন তার আভা ছড়িয়ে আমাদের আনন্দ দিয়ে চলে যায় আর মনের ভেতর শান্তির এক দাগ কাটা থাকে, তেমনি আমরা কি পারি বা পারবো পৃথিবী থেকে চলে যাবার আগে এমন কিছু করে যেতে যাতে করে পৃথিবীর মানুষ এর ভাল হয় এবং আল্লাহ্ তায়ালাও খুশী হন!! ইচ্ছাশক্তির চেয়ে বড় আর কি’ই বা থাকতে পারে? প্রবল ইচ্ছাশক্তি আর প্রচন্ড মনোবল এর কাছে কিন্তু অনেক কিছুই হার মেনে যায়!!

Naila Aziz Meeta

Naila Aziz Meeta

Home town is Bangladesh, live in Australia. Love to write, read ,travel and listening music.

No comments

Write a comment
No Comments Yet! You can be first to comment this post!

Write a Comment

Your e-mail address will not be published.
Required fields are marked*


Related Articles

বড়ু ভড়ু নড়ু

অদ্ভুতুড়ে শিরোনাম। চমকে যাওয়ার কথা। সত্যি তো! ইংরেজী বাংলা অক্ষর সাজিয়ে বা মিলিয়ে কি কথা বলার বা ভাষণ দেওয়ার চেষ্টা

মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ কি এই বাংলাদেশ চেয়েছিলেন?

শহরের প্রাণকেন্দ্রে নির্মিত বিশালাকার স্থাপত্য শিল্প নিদর্শন মেলবোর্ন একজিভিশন কেন্দ্রে বসে যখন দেশের কথা ভাবছি তখন ফেসবুকে চোখ রাখতেই নজরে

মেলবোর্নের চিঠি – ৭

বিমান বাংলাদেশ এয়ারে স্বাগতম, আমি ক্যাপ্টেন নাদেরা নদী বলছি, ভদ্রলোক ও ভদ্রমহোদয়গ্ণ, আপনারা আপনাদের সিটবেল্ট বেঁধে বসুন, এখনও না বেঁধে