প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী শামিম আরা নিপা’ ও চিত্রনায়ক ফেরদৌস-এর উপস্থিতেতে সিডনিতে ট্যালেন্ট শো

প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী শামিম আরা নিপা’ ও চিত্রনায়ক ফেরদৌস-এর উপস্থিতেতে সিডনিতে ট্যালেন্ট শো

কাজী সুলতানা শিমিঃ প্রতিভা অন্বেষনের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রবাসে বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্ম বাংলা সংস্কৃতি ও কৃষ্টিকে যেন শিকড় হিসেবে ধারণ ও লালন করে তারই প্রেরণা দিতে এক অভূতপূর্ব প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক সাংস্কৃতিক সংগঠন দিগন্ত’। দিক দিগন্তে বাংলা’-এই শ্লোগানে সংগঠনটি প্রবাসে জন্ম ও বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্মকে উৎসাহ দিতে আয়োজন করতে যাচ্ছে ট্যালেন্ট শো”। আগামী ৭ই অক্টোবর কাম্পসির ওরিয়ন সেন্টারে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এর সমাপ্তি পর্ব। এ প্রেক্ষিতে ১ই অক্টোবর রোববার সিডনির বাঙ্কসটাউন সিনিয়র সিটিজেন সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয় প্রতিযোগী বাছাই পর্ব।

ট্যালেন্ট শো’-আয়োজনটি মূলত একটি প্রতিযোগিতা মূলক অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানে প্রবাসে বেড়ে উঠা বাচ্চারা বাংলা গান ও নাচ বিষয়ে প্রতিযোগিতা করছে। প্রতিযোগীদের দুটি পর্বে ভাগ করা হয়েছে। গ্রুপ এ হচ্ছে ৮ থেকে ১২ বছরের বাচ্চা আর গ্রুপ বি তে থাকছে ১২ থেকে ১৮ বয়সী বাচ্চারা। এতে বিচারক হিসেবে রয়েছেন বাংলাদেশ থেকে আসা চিত্রনায়ক ফেরদৌস ও প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী শামিম আরা নিপা’ ও স্থানীয় হিসেবে ছিলেন সঙ্গীত শিক্ষিকা কাকলী মুখার্জি।

১ই অক্টোবর বাছাই পর্বে অভিভাবকেরা তাদের বাচ্চাদের নিয়ে সকাল থেকেই উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানস্থলে। লেবার ডে’ লং হলিডে এবং পূজার ছুটি কাটাতে অনেকেই তাদের বাচ্চাদের নিয়ে সিডনির বাইরে থাকায় এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারেননি। তবুও উপস্থিত সকলের মাঝে দেখা যায় বিপুল উদ্দীপনা। তারা সকাল থেকে যে আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করেছে তাতে প্রতীয়মান হয় যে এ ধরণের প্রতিযোগিতা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক। অনুষ্ঠানে চূড়ান্ত পর্বে গ্রুপ-এ ৭ জন গানের জন্য, ৫ জন নাচের জন্য গ্রুপ-বি তে ৬ জন গানের জন্য এবং ৩ জন নাচের জন্য নির্বাচিত হয়েছে। সর্বমোট ২১ জন প্রতিযোগী চূড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহণ করবে।

আয়োজকদের মধ্যে অন্যতম ডাঃ ফারজানা ইউসুফ লিটা জানান, আমরা যারা বাংলাদেশ থেকে এসেছি তারা বাংলা কৃষ্টি ও সংস্কৃতি সম্পর্কে ইতোমধ্যে জানি। কিন্তু আমরা যখন থাকবনা আমাদের প্রজন্ম যেন বাংলাকে ধরে রাখতে পারে সেজন্যই আমাদের এই প্রচেষ্টা। এ আয়োজনে মূলত থাকছে শিশুকিশোরেরা।

উল্লেখ্য, এ ধরণের প্রতিযোগিতা অস্ট্রেলিয়ায় ইতিমধ্যে করা হয়নি বলে এটা অত্যন্ত গুরত্বপুর্ন পদক্ষেপ বলে মনে করছেন বিচারকরা। এভাবে অনুষ্ঠানটির ধারাবাহিকতা রক্ষা করা গেলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম বাংলাকে অস্ট্রেলীয় মূল ধারায় নিয়ে যেতে সক্ষম হবে বলে বিচারকরা আশা ব্যক্ত করেন।

তারা আরও জানান, সমাপ্তি পর্বে যারা ভালো করবে তাদেরকে বাংলাদেশের মূলধারায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়ার সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে যাতে করে তারা আরও উৎসাহিত হয় বাংলাদেশকে চেনার ও জানার। শিশুকিশোরদের উৎসাহ দিতে ফেরদৌস ও শামিম আরা নিপা’ ও মূল অনুষ্ঠানে তাদের সাথে পারফর্ম করবেন। এ ব্যাপারে আয়োজকরা ৭ই অক্টোবর সকলকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে শিশুকিশোরদের উৎসাহ দিতে অনুরোধ করেছেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্যর জন্য কায়জার চৌধুরী-0437 364634, ডাঃ ফারজানা ইউসুফ- 0437 466017 যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা হয়েছে।

Kazi Sultana Seeme

Kazi Sultana Seeme

কলামিস্ট, প্রাবন্ধিক ও সাংবাদিক। বর্তমানে বাংলাদেশের জাতীয় পত্রিকা দৈনিকে নিয়মিত লিখছেন। সাথে সাথে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি হিসেবেও নিয়মিত লেখালেখি, নিউজ ও রিপোর্ট করছেন। নিয়মিত সিডনীর বাংলাদেশী কমিউনিটি’র রিপোর্ট, গল্প ও কবিতা সহ বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করছেন।
তিনি বর্তমানে বেশ কয়েকটি স্থানীয় ও অন-লাইন পত্রিকা গুলোতে নিয়মিত কলাম, গল্প ও কবিতা লিখছেন। যেহেতু তার মূল একাডেমীক পড়াশোনা দর্শন ও নীতিবিদ্যা তাই তার লেখার মূল বিষয় বস্তু মানবতা ও নৈতিকতা। শুধুমাত্র রাজনীতি ছাড়া অন্যান্য সব সামাজিক বিষয় ও সমস্যা নিয়ে তার আগ্রহ এবং লেখালেখি।

No comments

Write a comment
No Comments Yet! You can be first to comment this post!

Write a Comment

Your e-mail address will not be published.
Required fields are marked*


Related Articles

ছাত্রদল অস্ট্রেলিয়া শাখার উদ্যেগে তারেক রহমানের ৪৮ তম জন্ম বার্ষিকি উদযাপন

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল অস্ট্রেলিয়া শাখার উদ্বেগে গত ২০শে নভেম্বর ২০১২ বিএনপি সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৪৮তম জন্ম বার্ষিকী পালন

Please don’t take the government ‘hostage’

Every sensible person in the country was visibly horrified by the last week’s senseless and brutal massacre at the headquarters

প্রবাস জীবনঃ ক্যানবেরায় বাঙালী সংস্কৃতিকে সচল রাখতে দরকার নতুন প্রজন্মের অংশগ্রন

গত ৩০ এপ্রিল ‘প্রিয় অষ্ট্রেলিয়া’ আমার একটি লেখা ছাপে। ‘প্রবাস জীবনঃ সংস্কৃতির চর্চা ও বন্ধুত্বের সম্পর্ক’ শিরোনামের সেই লেখাটিতে পাঠকদের